বৃহস্পতিবার   ১২ ডিসেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ২৮ ১৪২৬   ১৪ রবিউস সানি ১৪৪১

চট্টলার বার্তা
২৪

অনূর্ধ্ব ১৯ নারী বিশ্বকাপের প্রথম আয়োজক বাংলাদেশ

প্রকাশিত: ১৫ অক্টোবর ২০১৯  

গতকাল দুবাইয়ে ছিলো আন্তর্জাতিক ক্রিকেট নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসির বোর্ড সভা। সেই সভায় অনেক গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত হয়েছিলো। যার মধ্যে একটি ছিলো জিম্বাবুয়ে ও নেপালকে আইসিসির সদস্য ফিরিয়ে দেয়া। এর চেয়ে অন্যতম সিদ্ধান্ত ছিলো প্রথমবারের মতো নারী অনূর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপের আয়োজক বাংলাদেশ। ২০২১ সালে আবারো আইসিসির কোন বৈশ্বিক আসর এককভাবে আয়োজনের সুযোগ পাচ্ছে বাংলাদেশ।

পুরুষদের জন্য অনূর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপ থাকলেও এতোদিন নারীদের জন্য তা ছিলো না। ২০২১ সালেই নারীদের জন্য প্রথম বয়সভিত্তিক বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হবে। আসরটি প্রথমবারের মতো আয়োজনের সৌভাগ্য হবে বাংলাদেশের। টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে অনুষ্ঠিত হবে আসন্ন নারীদের অনূর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপ।

 

উল্লেখ্য, নারীদের জন্য এই সংস্করণের পাশাপাশি তাদের প্রাইজ মানি বাড়ানোর সিদ্ধান্তও নিয়েছে আইসিসি। আইসিসির ইভেন্টে নারীদের ম্যাচগুলোতে প্রাইজমানি ২.৬ মিলিয়ন ডলার বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

আগামী বছর অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠেয় নারী টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন দল নেবে এক মিলিয়ন ডলার এবং রানার আপ দল নেবে পাঁচ লাখ ডলার, যা ২০১৮ সালের নারী টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ থেকে পাঁচ গুণ।

শুধু চ্যাম্পিয়ন বা রানার আপ দল নয়, বিশ্বকাপে অংশ নেয়া দশটি দেশই পাবে মোটা অঙ্কের অর্থ। সবমিলিয়ে নারী ক্রিকেটে গতবারের (২০১৮ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ) তুলনায় ৩২০ ভাগ বেশি প্রাইজমানি রাখছে আইসিসি।

এছাড়া, ২০২১ সালের নারী বিশ্বকাপেও বড় অঙ্কের অর্থ ব্যয় করতে যাচ্ছে আইসিসি। ২০১৭ সালের নারী বিশ্বকাপে আইসিসি ব্যয় করে দুই মিলিয়ন ডলার। ২০২১ সালের নারী বিশ্বকাপে খরচ করবে সাড়ে তিন মিলিয়ন ডলার।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশ সর্বশেষ আইসিসির বৈশ্বিক আসর আয়োজন করে ২০১৬ সালে। সেটি ছিলো পুরুষদের অনূর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপ। তার আগে পুরুষ ও নারীদের টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ২০১৪ সালে ও ২০১১ সালে আইসিসি ৫০ ওভারের বিশ্বকাপেরও সহ আয়োজক ছিলো বাংলাদেশ। এখনো বিশ্বকাপে কয়টি দল অংশগ্রহণ করবে বা কি ফরম্যাটে হবে তা নিশ্চিত করে জানানো হয়নি আইসিসির পক্ষ থেকে।

চট্টলার বার্তা
চট্টলার বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর