সোমবার   ২১ অক্টোবর ২০১৯   কার্তিক ৫ ১৪২৬   ২০ সফর ১৪৪১

চট্টলার বার্তা
সর্বশেষ:
পাল্টাপাল্টি হামলায় ভারতের ৯, পাকিস্তানে ৭ জন নিহত আর কিপিং করবেন না মুশফিক? বাংলাদেশের উন্নয়ন পরিদর্শনে নিউইয়র্কের পাঁচ সিনেটর আজ ঢাকায় আসছেন রাষ্ট্রপতি জাপান ও সিঙ্গাপুর সফরে যাচ্ছেন আজ হাইকোর্টে ৯ বিচারপতি নিয়োগ দুই সেনা নিহতের পর পাকিস্তানে হামলা চালিয়েছে ভারত ‘বাংলাদেশের নির্মিত ফোন সারা বিশ্বে ব্যবহার হবে’ বিকেলে যুবলীগের সঙ্গে বসছেন শেখ হাসিনা
২৪

‘কুমারী মা’র আসনে শ্রেয়সী

নিউজ ডেস্ক:

প্রকাশিত: ৬ অক্টোবর ২০১৯  

কুমারী মা’র আসনে ৮ বছরের শ্রেয়সী বিশ্বাস। শ্রীমৎ শ্যামল সাধু মোহন্ত মহারাজের পৌরহিত্যে পূজার পর্বগুলো ধাপে ধাপে সম্পন্ন করা হচ্ছে। চারপাশে নারীদের প্রণাম, উলুধ্বনি, মন্ত্রোচ্চারণ, জয় কুমারী মা কি জয়, জয় মহামায়া কি জয়, জয় শ্রী শ্রী দুর্গা মা কি জয় ধ্বনিতে স্বর্গীয় পরিবেশ। কৌতূহলী মানুষের প্রচণ্ড ভিড়, কুমারী পূজার আসনে এবার কে? একনজর দেখা চাই।

প্রতিবছরের মতো এবারও রোববার (৬ অক্টোবর) বর্ণাঢ্য আয়োজনে নগরের পাথরঘাটা রাধাগোবিন্দ ও শান্তনেশ্বরী মাতৃমন্দিরে এ পূজার আয়োজন করা হয়। পূজারী ছিলেন পণ্ডিত বাবলা চক্রবর্তী, তন্ত্রধারে জুয়েল নাথ।  

শ্যামল সাধু মোহন্ত মহারাজ জানান, হিন্দু শাস্ত্রমতে ১-১৬ বছরের অজাতপুষ্প সুলক্ষণা যেকোনো বর্ণের ও গোত্রের কুমারীকে পূজা করার উল্লেখ রয়েছে। বয়স ভেদে কুমারীর নাম ভিন্ন হয়। এবার ৮ বছরের শ্রেয়সী বিশ্বাসকে কুমারী পূজার আসনে বসানো হয়েছে। তাই কুব্জিকা নামে পূজিত হয়েছে। শাস্ত্রীয় তাৎপর্য হচ্ছে-এ নামে পূজিত হলে শত্রুদের মোহিত করা যায়।

শাস্ত্র মতে, এক বছর বয়সে সন্ধ্যা, দুইয়ে সরস্বতী, তিনে ত্রিধামূর্তি, চারে কালিকা, পাঁচে সুভগা, ছয়ে উমা, সাতে মালিনী, আটে কুব্জিকা, নয়ে অপরাজিতা, দশে কালসন্ধর্ভা, এগারোয় রুদ্রাণী, বারোয় ভৈরবী, তেরোয় মহালক্ষ্মী, চৌদ্দয়ে পীঠনায়িকা, পনেরোয় ক্ষেত্রজ্ঞা এবং ষোল বছরে অম্বিকা বলা হয়ে থাকে।

মন্দির পরিচালনা কমিটির সদস্য রাসেল দাশ জানান, শ্রেয়সী বিশ্বাস (তাথৈ) সেন্ট যোসেফস স্কুলের দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্রী। দেওয়ানজী পুকুর পাড় এলাকার ডা. বিপ্লব বিশ্বাস ও স্মৃতিকণা বিশ্বাসের বড় নাতনি। বাবা শ্যাম কুমার বিশ্বাস ও মা তনিমা বিশ্বাস টিনা।

শ্যামল সাধু মোহন্ত মহারাজ পূজার্থীদের উদ্দেশে বলেন, কুমারী আদ্যাশক্তি মহামায়ার প্রতীক। দুর্গার আরেক নাম কুমারী। মূলত নারীকে যথাযথ মর্যাদায় অধিষ্ঠিত করতে এ পূজা করা হয়। মাটির প্রতিমায় দেবীর যে পূজা করা হয় তারই বাস্তব রূপ কুমারী পূজা।

কুমারীতে সমগ্র জাতির শ্রেষ্ঠ শক্তি, পবিত্রতা, সৃজনী ও পালনী শক্তি সব কল্যাণী শক্তি সূক্ষ্ম রূপে বিরাজিত। কুমারী প্রতীকে জগৎজননীর পূজায় পরম সৌভাগ্য হয়। তিনি এক হাতে অভয় এবং অন্যহাতে বর দেন।

শ্রেয়সীর বাবা-মা জানান, মেয়ে কুমারী পূজার আসল অলংকৃত করতে পেরেছে এটা পরম সৌভাগ্যের।  

এদিকে মহা অষ্টমী পূজা উপলক্ষে নগরের আসকার দীঘির পশ্চিম পাড়ের রামকৃষ্ণ মিশন আশ্রমে অঞ্জলি দিতে আসা ভক্তদের ঢল নেমেছে।

চট্টলার বার্তা
চট্টলার বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর