শুক্রবার   ২৯ মে ২০২০   জ্যৈষ্ঠ ১৫ ১৪২৭   ০৬ শাওয়াল ১৪৪১

চট্টলার বার্তা
৩২৭

ঘূর্ণিঝড় ফণি: সন্দ্বীপ-হাতিয়া রুটে নৌ চলাচল বন্ধ

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২ মে ২০১৯  

ঘূর্ণিঝড় ‘ফণি’র আঘাতের আশঙ্কায় চট্টগ্রাম থেকে সন্দ্বীপ ও হাতিয়া রুটে নৌচলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। বুধবার সন্ধ্যায় চট্টগ্রাম জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির এক সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

এ ব্যাপারে ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক দেলোয়ার হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন, ঘূর্ণিঝড় ফণি মোকাবিলার জন্য ২ হাজার ৭৩৯ টি সাইক্লোন আশ্রয় কেন্দ্র প্রস্তুত রাখা হয়েছে। সচেতনতার জন্য মাইকিং করার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

তিনি বলেন, চট্টগ্রামের সব সরকারি কর্মকর্তাকে স্থান ত্যাগ না করার জন্য মৌখিকভাবে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তবে এখনো ছুটি বাতিলের কোনো নির্দেশনা আসেনি।

ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৭৪ কিলোমিটার এর মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ১৬০ কিলোমিটার। যা দমকা অথবা ঝোড়ো হাওয়ার আকারে ১৮০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে।

এ কারণে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরকে ৪ (চার) নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

১৯৭৬ সাল থেকে এখন পর্যন্ত এপ্রিল মাসে বঙ্গোপসাগরে যতগুলো ঘূর্ণিঝড়ের সৃষ্টি হয়েছে তার কোনোটি কখনই এতো শক্তিশালী আকার ধারণ করেনি। প্রবল ঘূর্ণিঝড়ের বাতাসের গতিবেগ সাধারণত ৮৯ থেকে ১১৭ কিলোমিটার পর্যন্ত হয়ে থাকে এবং এই ঝড় যে কোনো সময় সৃষ্টি হতে পারে। 

ভারতীয় আবহাওয়া অধিদফতর জানিয়েছে, তেতাল্লিশ বছরে বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড়গুলোর মধ্যে ‘ফণি’সবচেয়ে শক্তিশালী।

ভারতভিত্তিক আবহাওয়ার আন্তর্জাতিক পূর্বাভাস সংক্রান্ত ওয়েবসাইট উইন্ডি ডটকম জানিয়েছে, দীর্ঘ সময় নেয়ায় ঘূর্ণিঝড়টি ক্রমশ শক্তিশালী হচ্ছে। ঘণ্টায় ১৭০ কিলোমিটার গতির বাতাসের শক্তি নিয়ে ভারতের উড়িষ্যা উপকূলের দিকে ধেয়ে যাচ্ছে অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় ফণি।

চট্টলার বার্তা
চট্টলার বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর