সোমবার   ২১ অক্টোবর ২০১৯   কার্তিক ৫ ১৪২৬   ২০ সফর ১৪৪১

চট্টলার বার্তা
সর্বশেষ:
পাল্টাপাল্টি হামলায় ভারতের ৯, পাকিস্তানে ৭ জন নিহত আর কিপিং করবেন না মুশফিক? বাংলাদেশের উন্নয়ন পরিদর্শনে নিউইয়র্কের পাঁচ সিনেটর আজ ঢাকায় আসছেন রাষ্ট্রপতি জাপান ও সিঙ্গাপুর সফরে যাচ্ছেন আজ হাইকোর্টে ৯ বিচারপতি নিয়োগ দুই সেনা নিহতের পর পাকিস্তানে হামলা চালিয়েছে ভারত ‘বাংলাদেশের নির্মিত ফোন সারা বিশ্বে ব্যবহার হবে’ বিকেলে যুবলীগের সঙ্গে বসছেন শেখ হাসিনা
১০

ট্রাম্পের অভিশংসন তদন্তে সহযোগিতা করবে না হোয়াইট হাউস

প্রকাশিত: ৯ অক্টোবর ২০১৯  

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অভিশংসন প্রক্রিয়ায় সহযোগিতা না করার ঘোষণা দিয়েছে হোয়াইট হাউস।
মঙ্গলবার এক চিঠিতে ডেমোক্রেট নিয়ন্ত্রীত পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ ‘প্রতিনিধি পরিষদ’কে আনুষ্ঠানিকভাবে নিজেদের এ সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিয়েছে মার্কিন প্রেসিডেন্টের দফতর।

 প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির কাছে পাঠানো চিঠিতে বলা হয়েছে, প্রেসিডেন্টের অভিশংসন প্রক্রিয়ায় সহযোগিতা করবে না হোয়াইট হাউস।

সেখানে আরো বলা হয়েছে, এই অভিশংসন প্রক্রিয়া সংবিধানসম্মত নয় এবং এটা নিয়ে যে তদন্ত শুরু হয়েছে তারও কোন আইনি ভিত্তি নেই।

এর ফলে প্রতিনিধি পরিষদের যে তিনটি কমিটি ট্রাম্পের অভিশংসন নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে তারা সরকারের পক্ষ থেকে আর কোনও তথ্য পাবে না। এছাড়া সরকারি কোনও কর্মকর্তাও আর তাদের ডাকে সাড়া দেবেন না। প্রতিনিধি পরিষদের ওই তিনটি কমিটিরই প্রধানের দায়িত্ব পালন করছেন ডেমোক্র্যাটিক পার্টির প্রতিনিধিরা।

হোয়াইট হাউসের এ পদক্ষেপের ফলে যুক্তরাষ্ট্রের প্রশাসনযন্ত্রের দুই প্রধান শাখার মধ্যে সাংবিধানিক ক্ষমতা নিয়ে দ্বন্দ্ব জটিল আকার ধারণ করতে যাচ্ছে।
 
সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ও ইউক্রেনের প্রেসিডেন্টের মধ্যকার একটি টেলিফোন আলাপ ফাঁস হয়। ওই ফোনালাপে দেখা যায়, যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ও তার ছেলে হান্টার বাইডেনের বিরুদ্ধে তদন্তের জন্য ইউক্রেনের প্রেসিডেন্টকে রীতিমতো চাপ দিয়ে যাচ্ছেন ট্রাম্প। ওই ফোনকলের অনুলিপিও গোপন করতে চেয়েছিল হোয়াইট হাউস। যদিও শেষ পর্যন্ত ওই প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়। 

হোয়াইট হাউসের ফোনকলের প্রতিলিপিতে দেখা গেছে, ট্রাম্প গত ২৫ জুলাই ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কিকে এই তদন্তের জন্য বারবার চাপ দিচ্ছিলেন। 

ওই ফোনালাপের ভিত্তিতে গোয়েন্দা সংস্থার একজন সদস্য আনুষ্ঠানিক অভিযোগ করার পর ট্রাম্পের অভিশংসনের দাবি সামনে আসে। ট্রাম্পকে তার পদ থেকে সরাতে তদন্ত শুরু করেছে প্রতিনিধি পরিষদের ডেমোক্র্যাট সদস্যরা। তবে এ ইস্যুতে নিজের বিরুদ্ধে তদন্তের উদ্যোগকে ন্যাক্কারজনক হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন ট্রাম্প।

আগামী বছরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্র্যাট মনোনয়নপ্রত্যাশীদের মধ্যে বাইডেন অনেকখানি এগিয়ে আছেন বলে বেশ কয়েকটি জনমত জরিপে দেখা গেছে। সম্ভাব্য প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করে ব্যক্তিগতভাবে লাভবান হওয়ার লক্ষেই ট্রাম্প ২৫ জুলাইয়ের ফোনালাপে ইউক্রেইনের প্রেসিডেন্টকে বাইডেন ও হান্টারের দুর্নীতি তদন্তে চাপ দিয়েছিলেন বলে ধারণা সমালোচকদের।

ওই ফোনালাপের কয়েকদিন আগেই তিনি ইউক্রেইনে ৪০ কোটি ডলারের সামরিক সহায়তা আটকে দিয়েছিলেন।

ডেমোক্রেটরা বলছেন, বাইডেনের বিরুদ্ধে তদন্তে চাপ দেয়ার মাধ্যমে প্রেসিডেন্ট বিদেশি একটি রাষ্ট্রকে মার্কিন নির্বাচনে হস্তক্ষেপের সুযোগ করে দিয়েছেন।

ট্রাম্প জেলেনস্কির সঙ্গে ফোনালাপে বাইডেন ও তার ছেলের দুর্নীতি তদন্ত নিয়ে কথা বলার কথা স্বীকার করলেও অন্যান্য অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

প্রতিনিধি পরিষদের কমিটিগুলো ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ওঠা এসব অভিযোগ খতিয়ে দেখছে। তারা এ বিষয়ে মার্কিন প্রশাসনের অনেক কর্মকর্তার সাক্ষ্যও নিয়েছে।

মঙ্গলবার অভিশংসন নিয়ে তদন্ত করা একটি কমিটির কাছে ইউরোপীয় ইউনিয়নে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত গর্ডন সন্ডল্যান্ডের সাক্ষ্য দেয়ার কথা থাকলেও হোয়াইট হাউস তা আটকে দেয়।

এর কয়েক ঘণ্টা পর হোয়াইট হাউসের কাউন্সেল প্যাট সিপোলোনে শীর্ষ ডেমোক্র্যাট নেতা, প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি এবং কংগ্রেসনাল তিন কমিটির ডেমোক্র্যাট চেয়ারম্যানদের কাছে পাঠানো ৮ পৃষ্ঠার চিঠিতে অভিশংসন তদন্তে সহযোগিতা করা হবে না বলে আনুষ্ঠানিকভাবে জানান।

চট্টলার বার্তা
চট্টলার বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর