সোমবার   ২১ অক্টোবর ২০১৯   কার্তিক ৫ ১৪২৬   ২০ সফর ১৪৪১

চট্টলার বার্তা
সর্বশেষ:
পাল্টাপাল্টি হামলায় ভারতের ৯, পাকিস্তানে ৭ জন নিহত আর কিপিং করবেন না মুশফিক? বাংলাদেশের উন্নয়ন পরিদর্শনে নিউইয়র্কের পাঁচ সিনেটর আজ ঢাকায় আসছেন রাষ্ট্রপতি জাপান ও সিঙ্গাপুর সফরে যাচ্ছেন আজ হাইকোর্টে ৯ বিচারপতি নিয়োগ দুই সেনা নিহতের পর পাকিস্তানে হামলা চালিয়েছে ভারত ‘বাংলাদেশের নির্মিত ফোন সারা বিশ্বে ব্যবহার হবে’ বিকেলে যুবলীগের সঙ্গে বসছেন শেখ হাসিনা
৬৩

শিশুকে হত্যার পর মাটিচাপা দিয়ে গুম করার চেষ্টা

ডেস্ক রিপোর্ট

প্রকাশিত: ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

সাতকানিয়ায় এক বছর বয়সী এক শিশুকে হত্যার পর মাটিচাপা দিয়ে মরদেহ গুম করার চেষ্টা করেছে তার চাচি।

বুধবার (১৮ সেপ্টেম্বর) রাত ১১টার দিকে সাতকানিয়া উপজেলার চরতি ইউনিয়নের সুঁইপুরা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

হত্যার ৬ ঘণ্টা পর মাটি খুঁড়ে শিশুটিকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। পারিবারিক কলহের জেরে শিশুটিকে হত্যা করে মাটিচাপা দেয়া হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে জানতে পেরেছে পুলিশ।

হত্যার শিকার হওয়া শিশুটি সুঁইপুরা গ্রামের দুবাই প্রবাসী মো. মামুনের ছেলে।  তার মা রীনা আক্তার একজন গৃহিনী বলে জানিয়েছেন সাতকানিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শফিউল কবীর।

তিনি বলেন, মামুন ও তার ভাই নুরুল আবছারের মধ্যে টাকা নিয়ে ঝামেলা হয়। দুবাই প্রবাসী মামুন তার ভাই নুরুল আবছারের মাধ্যমে বছরখানেক  আগে প্রায় এক লাখ টাকা পাঠান। তার স্ত্রীকে ওই টাকা দেয়ার কথা থাকলেও তিন-চারমাস পার হলেও দেননি। স্ত্রী বিষয়টি মামুনকে জানান। পরে মামুন বিদেশ থেকে দেশে ফিরলে এ নিয়ে তাদের মধ্যে ঝগড়া হয়।    

ওসি মো. শফিউল কবীর বলেন, ছয় মাস আগে মামুন আবার দুবাই চলে যান। কিন্তু দুই ভাইয়ের স্ত্রী ও পরিবারের সদস্যদের  মধ্যে এ নিয়ে প্রায়ই ঝগড়া চলতো। বুধবার বিকেলে প্রবাসী মামুনের স্ত্রী রীনা তার ছেলেকে শ্বাশুড়ির হেফাজতে রেখে গরুর জন্য ঘাস কাটতে যান।  এর ফাঁকে ওই শিশুকে আবছারের স্ত্রী মারুফা গলাটিপে খুন করে মরদেহ বাড়ির নলকূপ সংলগ্ন মাটিতে চাপা দেন।

পরে রীনা বাসায় ফেরার পর ছেলেকে না পেয়ে খোঁজাখুঁজি করতে থাকেন। এক পর্যায়ে নলকূপের পাশে নরম মাটি দেখে তাদের সন্দেহ হলে সেখান থেকে মরদেহ উদ্ধার করেন মা রীনা আক্তার।

এ ঘটনায় রীনা আক্তার বাদি হয়ে অভিযুক্ত  মারুফা ও তার স্বামী আবছারের বিরুদ্ধে মামলা করেন। পরে পুলিশ তাদের গ্রেফতার করেন বলে জানান ওসি।

চট্টলার বার্তা
চট্টলার বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর